জন্মের সময় জোড়া হওয়ায় পরিবার ফেলে চলে যায়,

জন্মের সময় জোড়া হওয়ায় পরিবার ফেলে চলে যায়,

রিদ্ধি ও সিদ্ধি, ২০১৩ সালে পারেল-এর এক হাসপাতালে জন্ম হয় এই জোড়া শিশুর। এই বিকৃতি নিয়ে জন্মানোর জন্যে ওই ছোট্ট শিশু দুটিকে ফেলে চলে যায় তাদের পরিবারের লোক। বাচ্চা দুটির বাবা-মা কেউ একবারও জানতেও চাননি, তারা কেমন আছে? আপাতত তাদের বাড়ি হচ্ছে পারেল-এর বি.জে ওয়াদিয়া হাসপাতাল। সদ্য তাদের চার বছরের জন্মদিন পালন করল হাসপাতালের কর্মীরা।

মুম্বইয়ের পানভেল-এর বাসিন্দা এক দম্পতির সন্তান রিদ্ধি-সিদ্ধি। জন্মের সময় তারা ১৮০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে জুড়ে ছিল। তাদের পক্ষে কোনও দিনই হাঁটা কার্যত সম্ভব ছিল না সেসময়। তবে তারপর থেকে তাদের শারীরিক অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে। তাই আনন্দে ওয়াদিয়া হাসপাতালের ২১ নম্বর ওয়ার্ডে কালই পালন করা হয় তাদের জন্মদিন। হাসপাতালেরই কর্মী শোভা গাইকারই এখন এই দুই শিশুর রক্ষণাবেক্ষণ করেন। রিদ্ধি-সিদ্ধি এখন স্কুলেও যাচ্ছে, বলছে রাইমস, চিনছে সংখ্যা।

তাদের নিয়মিত ফিজিওথেরাপিও করা হয়। এই দুই শিশুর চিকিত্সার জন্যে হাসপাতালের কুড়ি জন চিকিত্সকের একটি দল সারাক্ষণ ব্যস্ত থাকেন, জানাচ্ছেন হাসপাতালের সিইও ডক্টর মিনি বোধানওয়ালা। অস্ত্রোপচারের পর রিদ্ধি-সিদ্ধিকে আলাদা করা গেলেও, এখন আরও কিছু অস্ত্রোপচার বাকি। এরপরই তাদের শরীরের অন্য সব অংশ সঠিক ভাবে কাজ করবে, দাবি চিকিত্সকদের। তাদের চিকিত্সার পুরো খরচ দিচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।