মৌসুমী–ওমর সানী যা বললেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে

মৌসুমী–ওমর সানী যা বললেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে (ভিডিও)

৫ মে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে নতুন করে জটিলতা তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ তুলে সাম্প্রতিক নির্বাচনের ফলাফল বাতিল চেয়ে গত রোববার নির্বাচন আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করেন সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা পরাজিত প্রার্থী ওমর সানী। তাঁর করা এই আবেদন আমলে নিয়ে সোমবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন ও আপিল বোর্ড পুনরায় ভোট গণনার সিদ্ধান্ত নেয়। নতুন করে ভোট গণনায় পরাজিত সভাপতি প্রার্থী ওমর সানীর পক্ষে ৯টি ভোট বাড়ে। তাঁর ঘোষিত ভোটসংখ্যা ১৫৩ থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ১৬২-তে।

এদিকে জয়ী সভাপতি প্রার্থী িমশা সওদাগর ২৫৯ ভোট পেয়েছেন। তাই নির্বাচনের ফলাফল অপরিবর্তিতই থাকছে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে।
নির্বাচন বাতিলের আবেদনপত্রে ওমর সানীর করা অভিযোগগুলো ছিল ঘোষিত ফলাফলে প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা অসংগতিপূর্ণ, ভোট গণনাকেন্দ্র থেকে শিল্পী সমিতির বিদায়ী কমিটির সভাপতি শাকিব খানকে বের করে দেওয়া এবং ভোট কারচুপির।

পুনরায় ভোট গণনার পর নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান মনতাজুর রহমান আকবর বলেন, ‘ক্যালকুলেটরে হিসাব করায় ভুল হয়েছিল। ওই দিন ভোট গণনার সময় যেসব কাগজে ওমর সানীর পাওয়া ভোটসংখ্যা লেখা হয়েছে, সংখ্যা ঠিকই আছে। কিন্তু সব পাতা থেকে মোট ভোটসংখ্যা ক্যালকুলেটরে যোগ করতে গিয়েই ভুল হয়েছিল। নতুন করে গণনা করতে গিয়ে ভুল ধরা পড়েছে। প্রাথমিক গণনায় এ ধরনের ভুল কখনো কখনো হতেই পারে। তাই বলে যে ভোট গণনায় কারচুপি হয়েছে, এটি অবাস্তব দাবি। চূড়ান্ত ফলাফলের সব পাতায় ওমর সানীর দুজন প্রতিনিধি মৌসুমী ও অমিত হাসানের স্বাক্ষরও আছে। আমাদের ওপর যে দায়িত্ব ছিল, তা সঠিকভাবে পালন করেছি।’

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ফলাফল বাতিল করা হবে কি না, এ প্রসঙ্গে আকবর বলেন, ‘ফলাফল বাতিলের কোনো প্রশ্নই আসে না। কোনো সুযোগও নেই।’
এদিকে সংশোধিত ভোটের ফলাফল আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় আবেদনকারী ওমর সানীর হাতে তুলে দেওয়ার কথা। এ ব্যাপারে নির্বাচন আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন দিলু বলেন, ‘মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে ওমর সানীকে থাকতে বলা হয়েছে। নতুন ফলাফল তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হবে।’

ভোটসংখ্যা বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে কোনো কথা বলতে চাননি ওমর সানী। তিনি শুধু বলেছেন, ‘নতুন ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে হাতে পাইনি এখনো। আপিল বোর্ড আমাকে ডেকেছে। নতুন ফল হাতে পাওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানাব।’
অন্যদিকে চলচ্চিত্রপাড়ায় গুঞ্জন উঠেছে, এবারের নির্বাচনে কার্যকরী সদস্যপদে বিজয়ী মৌসুমী পদত্যাগ করবেন। গুঞ্জনের সত্যতা জানতে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘প্রথমে ভেবেছিলাম সবার সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করব। তবে ভোট গণনার রাতে কিছু মানুষের আচরণে আমি ভয় পেয়েছি। ভোটকেন্দ্রের বাইরে একজন জনপ্রিয় তারকাকে যেভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে, তাতে আমি ভীত। এ ধরনের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মধ্যে আমার পক্ষে কাজ করা সম্ভব নয়। তবে কখন পদত্যাগ করব, তা এখনই জানাতে চাইছি না।’