অল্প বয়সে পাকা চুল, যা করলে ২ দিনে কালো হবে!

বয়স বাড়লে চুল পাকবে এটাই স্বাভাবিক, কিন্তু আজকাল অল্প বয়সে অনেকের চুল পেকে যাচ্ছে। অল্প বয়সে চুল সাদা হলে যেমন বয়সের ছাপ পরে অন্য দিকে চেহারাও ম্লান দেখায়।এতে কমে যায় আত্মবিশ্বাসও।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অল্প বয়সে চুল পাকার জন্য কিছু জিনিসকে দায়ী করা যায় যেমন : কম ঘুম হওয়া, নিম্ন মানের প্রসাধনী, চুলে অত্যাধিক পরিমাণে রাসায়ণিক ব্যবহার, যত্নে অবহেলা, ভাজাপোড়া ও ফাস্টফুড জাতীয় খাবার, অতিরিক্ত চা-কফি পান, পুষ্টিকর খাবারের অভাব, বংশগত বা হরমোনের করণে, অতিরিক্ত চিন্তা, চুল ড্রাই, চুলে বেশি রোদ লাগা থেকে এটা হতে পারে। এছাড়া হতাশার কারণেও অল্প বয়সে চুলে পাক ধরতে পারে।

অল্প বয়সে বুড়িয়ে যাওয়ার এ সমস্যা মেটাতে আমরা প্রথমে বিউটি পার্লারে যাই, তারপর সমস্যা না মিটলে আমাদের চিকিৎসকের বাড়ি দৌড়াতে হয়। তারপরও দ্রুত সমস্যা মেটানো যায় না। তাহলে?

তবে এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই, চুল পাকা থেকে মুক্তির উপায় আছে। আসুন তাহলে সেই উপায়গুলো জেনে নিই :

* আমলকির রস, বাদামের তেল ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে সপ্তাহে কমপক্ষে দুই দিন চুলে লাগালে চুল পাকা কমে যায়।

* হরতকি ও মেহেদি পাতার সঙ্গে নারিকেল তেল দিয়ে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে চুলে লাগিয়ে ২ ঘণ্টা পরে ধুয়ে ফেলতে হবে।

* নারিকেল তেল গরম করে মাথার তালুতে ভালো করে ম্যাসেজ করলে চুলের প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাবে এবং চুল পাকা কমে যাবে।

* চুল সাদা হওয়ার শুরুতে হেনা, ডিমের কুসুম ও টক দই একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে চুলে লাগালে চুল সাদা হওয়া কমে যাবে।

* চুলে যেন সরাসরি রোদ না লাগে সেজন্য বাইরে বের হলে ছাতা, ক্যাপ অথবা ওড়না দিয়ে চুল ঢেকে রাখা জরুরি।

* চুলের ধরণ অনুযায়ী নিয়মিত ভালো ব্রান্ডের শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। চুলের ক্রিম, জেল, কালার, শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ব্যবহারের ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

* চুলে খুশুকি হলে শুরুতেই সাবধান হতে হবে। অতিরিক্ত খুশকির কারণে চুল সাদা দেখায়।

* ধুমপান পরিহার করে নিয়মিত পানি, ফলমূল, রঙিন শাকসবজি ও পুষ্টিকর খাবার খেলে চুল সাদা হবে না।

এছাড়া আপনাকে সপ্তাহে তিন দিন অয়েল ম্যাসাজ করতে হবে। সপ্তাহে দু’দিন আমলা, শিকাকাই, মেথি ও টকদই একসঙ্গে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগাবেন। আধা ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করবেন। সঠিক পুষ্টি পেলে আপনার চুল পাকা কমে আসতে পারে।

Comments

comments

SHARE