লবণ কম তো আয়ু বেশি

লবণ খাওয়ার পরিমাণ মাত্র ১০ শতাংশ কমালেই বিশ্বের লাখো মানুষের জীবন রক্ষা পেতে পারে। বেশি করে লবণ খেলে হৃদ্‌রোগ ও স্ট্রোক থেকে মৃত্যু হতে পারে। ঘটতে পারে পঙ্গুত্বের মতো বিপর্যয়। ব্রিটিশ চিকিৎসা সাময়িকী ‘বিএমজে’তে প্রকাশিত গবেষণা-বিষয়ক এক নিবন্ধে এই চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের টাফটস ফ্রিডম্যান স্কুল অব নিউট্রিশন সায়েন্স অ্যান্ড পলিসি এ গবেষণা পরিচালনা করে। অধ্যাপক দারিশ মোজাফিরিয়ান এ গবেষণার নেতৃত্ব দেন। গবেষণা-বিষয়ক নিবন্ধে বলা হয়, সরকার যদি লবণ খাওয়ার পরিমাণ কমাতে কোনো প্রচার কর্মসূচিতে মাথাপিছু মাত্র ১০ মার্কিন সেন্ট ব্যয় করে, তবে বিপুল ক্ষতি কমানো যায়। লবণ খাওয়া কমাতে সরকার যদি কোনো কার্যকর কর্মসূচি নিতে পারে এবং তা যথাযথ বাস্তবায়ন করতে পারে, তবে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হওয়ার হার কমতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক সর্বোচ্চ দু​ই গ্রাম লবণ খাওয়া উচিত। তবে বেশির ভাগ মানুষ এ নিয়ম মেনে চলে না। আর এর ফলে হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে বছরে সাড়ে ১৬ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়।

লবণ বেশি খাওয়ার কারণে রোগে আক্রান্ত হয়ে যে সময় নষ্ট হয়, এর একটি পরিসংখ্যানও গবেষণায় তুলে ধরা হয়েছে। বলা হয়েছে, এক দশকের বেশি সময়ে লবণ খাওয়ার বর্তমান প্রবণতা রোধ করতে পারলে প্রতিবছর গড়ে সারা বিশ্বে ৫৮ লাখ অক্ষমতা সমন্বয় করার বছর (ইংরেজিতে ডালি নামে পরিচিত) কমে যাবে। জনপ্রতি স্বাস্থ্য-বিষয়ক খরচা কমবে ১ দশমিক ১৩ ডলার।

Comments

comments

SHARE